Thursday , September 29 2022

BCS preparation in General knowledge part-2 | সাধারণ বিজ্ঞান এর গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন ।। Easy Way

BCS preparation in General knowledge part-2

BCS preparation in General knowledge

আপডেট জব Update Job আপনাদের পাশে থেকে আপনাদের সুন্দর ক্যরিয়ার গড়তে সহায়তা করে যাচ্ছে। বি সি এস এর সকল প্রস্তুতই Update Job website: https://updatejob.net   এ পাবেন। আপনাদের বিসিএস প্রিলি প্রস্তুতির জন্যে সাধারণ বিজ্ঞান খুব গুরুত্বপূর্ণ ও জটিল একটি অধ্যায় । তাই আপনাদের সুবিধার্থে ৯ম ১০ম শ্রেনীর পাঠ্যবই থেকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন আপনাদের জন্যে দেওয়া হল। বিসিএস থেকে শুরু করে যেকোনো সরকারি জবের জন্য ৯ম-১০ম শ্রেনীর সাধারণ বিজ্ঞান বই হতে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন একনজরে BCS preparation in easy way General knowledge part-2

৫ম অধ্যায়ঃ

BCS preparation in General knowledge part-2

১।গাড়ির দুইপাশে ও পিছনে হতে কয়টি দর্পণ ব্যবহার হয় – ৩টি।

২।চাঁদ দিগন্তে দিকে লাল দেখায় কেন – বায়ুমণ্ডলীয় প্রতিসরণের জন্য।

৩।+2D লেন্সটির ফোকাস দূরত্ব – ০.৫ মি। -2D লেন্সটির ফোকাস দূরত্ব – ৫০ সে.মি।

৪।লেন্সের ক্ষমতা এস. আই একক – রেডিয়ান/মিটার♦

৫।শিশুর স্বাভাবিক চোখের স্পষ্ট দৃষ্টির নূন্যতম দূরত্ব – ৫ সেমি♦

৬।চোখের কোন অংশে উল্টো প্রতিবিম্ব গঠিত হয় – রেটিনা।

৭।বয়স্ক মানুষের স্বাভাবিক চোখের স্পষ্ট দৃষ্টির নূন্যতম দূরত্ব – ২৫ সেমি।

৮।আবছা আলোয় সংবেদনশীল হয় – রড♦

৯।রড অনুভূতি ও রঙের পার্থক্য নির্ধারণে সাহায্য করে – কোণ।

১০।আপতিত রশ্মি ও অভিলম্বের মধ্যবর্তী কোণকে বলে – আপতন কোণ♦

১১।সংকট কোনের ক্ষেত্রে প্রতিসরণ কোণ – ৯০ ডিগ্রী।

১২।ঘন মাধ্যমে আলোর বেগ – কমে যায়।

১৩।উভয় লেন্সের বক্রতার ব্যাসার্ধ ও কেন্দ্র – ২টি।

১৪।উভয় লেন্সের আলোক কেন্দ্র – ১টি।

১৫।অবতল লেন্সের অপর নাম – অপসারী লেন্স♦

BCS preparation in General knowledge part-2

১৬।আলো এক প্রকার – শক্তি।

১৭।লেন্স প্রধানত – ২ প্রকার।

১৮।চোখ কাজ করে – অভিসারী লেন্সের মতো।

১৯।চোখের ত্রুটি – ৪ ধরনের।

২০।চোখ ভালো রাখার জন্য বেশি প্রয়োজন – প্রোটিন যুক্ত খাবার♦

২১।যে মসৃণ তলে আলোর নিয়মিত প্রতিফলন ঘটে তাকে – দর্পণ বলে।

২২।নিরাপদ ড্রাইভিং এর শর্ত – নিজ গাড়ির আশে পাশে সর্বদা খেয়াল রাখা♦

২৩।পাহাড়ি রাস্তার বিপদজনক বাঁকে সমতল দর্পণ ব্যবহার হয় – ৯০ ডিগ্রী।

২৪।আলোর প্রতিসরণের সূত্র – ২ টি♦

২৫।মানুষের দর্শনানুভুতির স্থায়িত্বকাল – ০.১ সেকেন্ড।

২৬।চোখের আলোক সংবেদন আবরণ – রেটিনা।

২৭।দর্পণ বিশেষভাবে ব্যবহার হয় – নিরাপদ ড্রাইভিং এ।

২৮।আলোর প্রতিসরণ ব্যবহার হয় – এক্স-রে তে♦

২৯।চোখের রেটিনার রং – গোলাপি।

৩০।চোখের উপাদান নয় – আইভ্রু।

৩১।পানিতে নৌকার বৈঠা বাঁকা দেখা যাওয়ার কারন – আলোর প্রতিসরণের কারনে।

৩২।স্বাভাবিক চোখের দূরবিন্দুর দূরত্ব – অসীম।

৩৩।+1D ক্ষমতা লেন্সের ফোকাস দূরত্ব -100cm উত্তল।

৩৪।বায়ু সাপেক্ষ কাচের প্রতিসরণাঙ্ক – ১.৫♦

৩৫।রাস্তার বাতিতে ব্যবহার হয় – উত্তল দর্পণ♦ ♦♦

♥৬ষ্ঠ অধ্যায়ঃ

BCS preparation in General knowledge part-2

১।প্রাকৃতিক পলিমার – রাবার♦

২।ভিনাইল ক্লোরাইড নামক মনোমার থেকে তৈরি হয় -পি ভি সি পাইপ♦

৩।কৃত্রিম পলিমার – পলিথিন♦

৪।প্যারাসুটের কাপড় তৈরিতে ব্যবহার – নাইলন♦

৫।আলফা কী – পশম।

৬।প্লাষ্টিক শব্দের অর্থ – সহজে ছাঁচযোগ্য।

৭।পলিথিনের সংকেত –

৮।পলিমারের ক্ষুদ্র অনুকে বলে – মনোমার♦

৯।পলিমার শব্দটি – গ্রীক।

১০।গ্রীক শব্দ “মেরোস” এর অর্থ – অংশ।

১১।মানুষের চুলে আর নখে থাকে – কেরাটিন প্রোটিন।

১২।তন্তুর রানী – রেশম। ১৩।চেল্লার অপর নাম – পিল♦

১৪।জন্মদিনে ব্যবহারিত বেলুনে দ্রবীভূত হয় – বেনজিন।

১৫।রাবার সাধারণত কোন ধরনের হয় – হালকা বাদামি।

১৬।”পলি” অর্থ – অনেক♦

১৭।উৎস অনুযায়ী পলিমার – ২ ভাগে ভাগ করা যায়।

১৮।আমরা যে পলিথিন ব্যবহার করি তা – “ইথিলিন” নামক মনোমার হতে তৈরি পলিমার।

১৯।তন্তু – ২ প্রকার♦

২০।প্রায় ৪০ জাতের মেষ হতে পশম তৈরি হয় – ২০০ প্রকার।

♥♦♥৭ অধ্যায়ঃ

BCS preparation in General knowledge part-2

১।ভিনেগারের সংকেত – (CH3COOH)♦

২।শক্তিশালী এসিড – সালফিউরিক এসিড,নাইট্রিক এসিড,হাইড্রোক্লোরিক এসিড♦

৩।এসিড নীল লিটমাসকে কোন রং এ পরিবর্তন করে – লাল♦

৪।লাল লিটমাস কাগজকে ক্ষারের মধ্যে ডুবালে কোন রং হবে – নীল।

৫।হিস্টামিনকে অকার্যকর করে – ভিনেগার♦

৬।ভিনেগারের অপর নাম – এসিটিক এসিড,সিরকা♦

৭।টেস্টিংসল্ট যে নামে পরিচিতি – মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট♦♦♦♦

৮।জৈব এসিড – (CH3COOH)♦

৯।অম্লীয় দ্রবণের জন্য সঠিক – pH<7♦♦

১০।আমাদের ধমনির রক্তের pH -7.4।

১১।ক্ষারক – (NaOH)। NaOH (সোডিয়াম হাইড্রোক্সাইড) ক্ষারক। তেমনি ১২ নাম্বার Ca(OH)2(ক্যালসিয়াম হাইড্রোঅক্সাইড) ও ক্ষারক। যে সকল যৌগে OH( হাইড্রোক্সাইড) থাকে তার সব ই ক্ষারক। যেমন: Al(OH)3 (এলুমিনিয়াম হাইড্রোঅক্সাইড)।Mg(OH)2 (ম্যাগনেসিয়াম হাইড্রোক্সাইড)।

BCS preparation in General knowledge part-2

১২।স্লাক লাইম – [Ca(OH)2]

১৩।পিঁপড়া কামরে নি:সৃত হয় – ফরমিক♦♦

১৪।মৌমাছি হুল ফুটালে ব্যবহার করা হয় – জিংক কার্বোনেট (ZnCO3)।

১৫।চামড়া ট্যানিং করতে ব্যবহার হয় – খাবারের লবন।

১৬।জীবানুনাশক হিসেবে ব্যবহার হয় – (CuSO4)।

১৭।অ্যামোনিয়া নাইট্রেট তৈরি হয় – HNO3 থেকে।

১৮।NaCl+HCl= NaOH(লবন)+H2O( পানি)

১৯।কাপড় কাচার সোডার সাথে থাকে – ১০ অনু পানি।

২০।আইপিএস এর অত্যাবশ্যকীয় উপাদান – সালফিউরিক এসিড (H2SO4)।

২১।ভিনেগার সংকেতে থাকে – ৪টি হাইড্রোজেন♦

২২।বেকিং সোডার সংকেতে হাইড্রোজেন পরমানুর সংখ্যা – ১টি।

২৩।মানব দেহের জন্য ক্ষতিকারক এসিড – হাইড্রোক্লোরিক♦

২৪।নির্দেশক হলো – রাসায়নিক পদার্থ।

২৫।নির্দেশক – ৪ ধরনের♦

২৬।রক্তে pH এর মান কতটুকু পরিবর্তিত হলে মৃত্যু হতে পারে – 0.4।

২৭।এসিডের পরিমান বাড়লে, pH এর মান – কমে।

২৮।পাকস্থলী pH কত কম বা বেশি হলে বদহজম সৃষ্টি হয় – 0.5।

২৯।শিশুদের ত্বকের pH এর মান – 7♦

৩০।আমাদের পাকস্থলীর খাদ্য হজমের জন্য দরকারি pH – 2।

৩১।ক্যালমিনের মূল উপাদান – (ZnCO3)।

৩২।টুথপেস্টের pH সাধারণত – ৯ হতে ১১ মধ্যে হয়।

৩৩।অ্যান্টাসিড হলো – ক্ষার♦♦

৩৪।প্রশমন কিক্রিয়ার মান হয় – ৭।

৩৫।কপার সালফেটকে বলা হয় – তুঁত।

৩৬।অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট – সার।

৩৭।দইয়ে ও বোরহানিতে থাকে – ল্যাকটিক এসিড।

৩৮।বাংলাদেশ নারী ও শিশু নির্যাতন আইন অনুযায়ী এসিড ছোড়ার শাস্তি – মৃতুদন্ড (১৯৯৫ সালের আইন)।

৩৯।জবা ফুলের রং এসিডের মধ্যে উৎপন্ন করে – লাল রং।

৪০।জবা ফুলের রং ক্ষারকের মধ্যে উৎপন্ন করে – নীল রং।

৪১।আমাদের জিহ্বার লালায় কার্যকরী pH – 6.6।

৪২।নিরপেক্ষ জলীয় দ্রবণ pH এর মান – 7♦♦♦

৪৩।আমাদের ত্বকের pH এর মান – 4-6।

৪৪।টেস্টিং সল্ট ব্যবহার করা হয় – খাবার স্বাদ বৃদ্ধির জন্য।

৪৫।কাপড় কাঁচার মূল উপাদান – সোডিয়াম স্টিয়ারেট।

৪৬।দূর্বল এসিড – এসিটিক এসিড, সাইট্রিক এসিড, অক্সালিক এসিড♦♦

৪৭।শক্তিশালী এসিড – সালফিউরিক এসিড, নাইট্রিক এসিড, হাইড্রোক্লোরিক এসিড।

৪৮।চিনির রাসায়নিক নাম -সুক্রোজ♦♦

৪৯।ব্লিচিং পাউডার-Ca(OCl)Cl♦♦ ফিটকিরি-K2SO4.Al2(SO4)3.24H2O♦♦ এই দুইটি রাসায়নিক পদার্থ পানি বিশুদ্ধ করনে ব্যবহার করা হয়।

৫০।নির্দেশক হলো অই সকল রাসায়নিক পদার্থ যারা নিজেদের রঙ পরিবর্তনের মাধ্যমে কোনো পদার্থ এসিড, ক্ষারক না নিরপেক্ষ তা নির্দেশ করে। যেমন: লিটমাস পেপার, মিথাইল অরেঞ্জ, মিথাইল রেড, ফ্যানফথেলিন।

সংকেতসমূহঃ♦♦♦♦[most important ]

BCS preparation in General knowledge part-2

১।এসিটিক এসিড – (CH3COOH)।

২।সাইট্রিক এসিড – (C6H8O7)।

৩।অক্সালিক এসিড – (HOOC-COOH)।

৪।সালফিউরিক এসিড – (H2SO4)।

৫।নাইট্রিক এসিড – (HNO3)।

৬।হাইড্রোক্লোরিক এসিড – (HCl)।

৭।কার্বোনিক এসিড – (H2CO3)।

৮।তুতের – (CoSO4.5H2O)।

৯।অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট এসিড – (NH4NO3)।

১০।অ্যামোনিয়াম সালফেট এসিড – ((NH4)2SO4)।

BCS preparation in General knowledge part-2

১১।অ্যামোনিয়াম ফসফেট – ((NH4)3PO4)।

১২।পটাসিয়াম স্টেয়ারেট এসিড – (Cl7H35COOKa)।

১৩।ফসফরিক এসিড – (H3PO4)।

১৪।জিংক কার্বোনেট এসিড – (ZnCO3)।

১৫।চুনাপাথর – (CaCO3)।

১৬।ম্যাগনেসিয়াম হাইড্রোক্সাইড এসিড – (Mg(OH)2)।

১৭।অ্যালুমিনিয়াম হাইড্রোক্সাইড এসিড – (Al(OH)3)।

১৮।খাবার সোডা – (NaHCO3)।

১৯।ক্যালসিয়াম কার্বোনেট এসিড – (CaCO3)।

২০।সিলভার সালফেট – (Ag2SO4)।

২১।মারকিউরিক সালফেট এসিড – (HgSO4)।

২২।মারকিউরিক ক্লোরাইড এসিড – (AgCl)।

২৩।সোডিয়াম ক্লোরাইড – (NaCl)।

২৪।সোডিয়াম স্টেয়ারেট এসিড – (Cl7H35COONa)।

২৫।সোডিয়াম কার্বোনেট এসিড – (Na2CO3)।

২৬।কপার সালফেট এসিড – (CuSO4)।

২৭।পটাসিয়াম নাইট্রেট এসিড – (KNO3)।

২৮।ম্যাগনেটাইট – (Fe3O4) ২৯।কোয়ার্টজ – (SiO2) ৩০।জিপসাম – (CaSO4.2H2O)।

BCS preparation in General knowledge part-2

আপনাদের সুন্দর ক্যারিয়ার গড়ার জন্যে আমরা আপনাদের পাশে আছি থাকব। এছাড়াও সকল ধরনের চাকরির সার্কুলার পাবেন আপডেট জব সাইটে। Govt Job Private Job Bank Job NGO job সহ সকল ধরনের চাকরির তথ্য পাবেন আপডেট জব সাইটে । শেয়ার করে আমাদের পাশে থাকার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

Read More:

BCS preparation in easy way General knowledge part -1

About UpdateJob

Check Also

BCS preparation 2022

BCS preparation 2022 : Vocabulary | বিসিএস প্রস্তুতি | Join Now

BCS preparation 2022   অনেকে বলেন ভাইয়া এত vocabulary পড়ি কিন্তু মনে থাকে না। কি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.